Irregular menstruation

Irregular menstruation

This content was developed for Bangladeshi Nationals.

মাসিক নারীর শরীরের জন্য অত্যন্ত জরুরি একটি বিষয়। মাসিক স্বাভাবিক ও প্রাকৃতিক হলেও এ নিয়ে নানা রকম লুকোছাপা থাকায় মাসিকের কিছু কিছু দিক নিয়ে কখনোই আলোচনা হয় না। ফলে নানা রকম ভুল ধারণা রয়ে যায় যা আরও ভয়াবহ স্বাস্থ্য ঝুঁকি তৈরি করতে পারে।

তেমনই একটি দিক হচ্ছে অনিয়মিত মাসিক। অনিয়মিত মাসিক বিভিন্ন কারণে হতে পারে। কিন্তু তার আগে জানা প্রয়োজন কখন মাসিককে অনিয়মিত বলা যায়।

একজন নারীর মাসিক চক্র সাধারণত ২৮ দিনের হয়, তবে তা ৫ থেকে ৭ দিন কম বেশি হতে পারে। যদি ক্ষেত্র বিশেষে ২৮ দিনের চেয়ে অনেকটা কম বেশি হয়ে যায় বা কোন মাসে মাসিক না হয় বা এক মাস সময়ে একাধিকবার মাসিক হয়, তবে তাকে অনিয়মিত মাসিক বলা যেতে পারে।

অনিয়মিত মাসিক হওয়ার অনেকগুলো কারণ থাকে। যেমন:

অভ্যুলেশন বা ডিম্বাণু বিকাশে দেরি

নারীর মাসিক চক্রের মধ্যে একটা সময় আসে যখন ডিম্বাশয়ে উৎপন্ন ডিম্বাণু ডিম্বনালী বেয়ে জরায়ুতে চলে আসে। এই প্রক্রিয়াকে অভ্যুলেশন বলা হয়। যদি কোন কারণে হরমোনে ভারসাম্য বদলে যায় অর্থাৎ হরমোন নিঃসরণের হার বা অনুপাতে তারতম্য হয়, তাহলে অভ্যুলেশন প্রক্রিয়া শুরু হতে দেরি হয়ে যায়। সেক্ষেত্রে মাসিক দেরিতে হতে পারে।

অতিরিক্ত ব্যয়াম বা শরীরচর্চার অভ্যাস

যদিও হালকা ব্যয়াম ও কিছু কিছু শারীরিক চর্চা মাসিক প্রক্রিয়া সহজ করতে সাহায্য করে। তবে অনেক সময় তা অতিরিক্ত হয়ে গেলে মাসিক প্রক্রিয়া ব্যহত হয়। বিশেষত, যে সকল ব্যয়াম বা খেলাধুলায় পেশীশক্তির ব্যবহার অত্যধিক হয়, সে সব ক্ষেত্রে হরমোন নিঃসরণের তারতম্য ঘটতে পারে ও মাসিক অনিয়মিত হয়ে যেতে পারে।

মানসিক চাপ

মানসিক চাপ অনিয়মিত মাসিকের অন্যতম প্রধান কারণ। মানসিক চাপের কারণে মস্তিষ্ক তার স্বাভাবিক কর্মপদ্ধতি হারিয়ে ফেলে এবং হরমোন নিঃসরণ অনিয়মিত হয়ে যায়। এর ফলে, মাসিক প্রক্রিয়া ব্যাপকভাবে প্রভাবিত হতে পারে।

জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি

জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি হিসেবে খাওয়ার বড়ি বা বার্থ কন্ট্রোল পিল অনেকে ব্যবহার করে থাকেন। বার্থ কন্ট্রোল পিলে এমন নানা রকম উপকরণ থাকে যা শরীরের হরমোন নিঃসরণের উপর প্রভাব রাখে। এর ফলে নিয়মিত মাসিক প্রক্রিয়া ব্যহত হতে পারে।

স্তন্যদান

অনেক সময় নবজাতক বা ছয় মাস থেকে এক বছর বয়সী শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ানোর কারণে মায়ের মাসিক প্রক্রিয়া অনিয়মিত হয়ে পড়তে পারে। কখনও কখনও এমনও দেখা যায় স্তন্যদাত্রী মায়ের শিশুকে দুধ খাওয়ানোর পুরোটা সময়ই মাসিক হয় না। সন্তানকে দুধ খাওয়ানো বন্ধ করার পর মাসিক স্বাভাবিক হয়ে আসে।

ধূমপান ও মাদক গ্রহণ

অতিরিক্ত ধূমপান ও মাদকদ্রব্য ব্যবহার নারীর মাসিকের স্বাভাবিক প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্থ করতে পারে।

 

References:

www.webmd.com

www.everydayhealth.com

Leave a Reply

Your email address will not be published.