This content was developed for Bangladeshi Nationals.

মাসিকের বিষয়ে তথ্য পাওয়ার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি উৎস হলো পরিবার। মাসিক বিষয়ক তথ্য যেন সঠিক হয় তার জন্য মা-বাবার বয়ঃসন্ধি ও মাসিক সম্পর্কে পরিপূর্ণ ধারণা থাকা দরকার। সেই সাথে ছোটবেলা থেকে ছেলেমেয়েদের সাথে সহজ সম্পর্ক রাখা জরুরি যাতে পরিবারে মাসিক নিয়ে খোলামেলাভাবে কথা বলার মত পরিবেশ তৈরি করা যায়।

  • মেয়ের সাথে বন্ধুসুলভ আচরণ করা এবং সে যেন বয়ঃসন্ধির সময় তার শারীরিক ও মানসিক পরিবর্তনের বিষয়গুলো সহজে বলতে পারে সেই পথটা সুগম করা
  • মাসিকের আগে মাসিক সম্পর্কে মেয়েকে ধারণা দেয়া এবং একই সাথে ছেলের সাথেও আলাপ করা যেন সেও সঠিক তথ্য জানতে পারে পরিবার থেকেই
  • মাসিক নিয়ে মা তার নিজের অভিজ্ঞতা মেয়েকে গল্পের ছলে বলতে পারেন এবং বিষয়টা স্বাভাবিক ও সব মেয়েরই হয় তাই এতে ভয়ের কিছু নেই বলে আশ্বস্ত করা
  • মেয়েকে মাসিককালীন নানা উপকরণ, যেমন: মাসিকের কাপড়, প্যাড সম্পর্কে ধারণা দেয়া
  • মেয়েকে মাসিক সম্বন্ধে ইন্টারনেটে নির্ভরযোগ্য ওয়েবসাইট থেকে পড়তে আগ্রহী করা
  • মাসিকের সময় মেয়ের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার বিষয়টি খেয়াল রাখা
  • মাসিক বিষয়টি প্রায়ই কাল্পনিক বিধিনিষেধ দিয়ে বেষ্টিত থাকে। তাই শুরু থেকেই সতর্ক থাকতে হবে যেন কোন ধরনের কুসংস্কার ও ভুল তথ্য ছোট্ট মেয়েটির উপর মানসিক ও শারীরিকভাবে নেতিবাচক প্রভাব না ফেলে
  • মেয়েকে নিজের যত্ন নিতে শেখানো, নির্দিষ্ট সময় পর পর প্যাড পরিবর্তন ও কাগজ দিয়ে প্যাড ভালোভাবে মুড়িয়ে আবর্জনায় ফেলার জায়গায় ফেলানোর বিষয়ে তথ্য দিয়ে সাহায্য করা
  • মেয়েকে মাসিকের সময় তার প্রয়োজন বুঝে প্যাড কিনে দিয়ে সাহায্য করা
  • মাসিক নিয়ে তার যেকোন প্রশ্নের স্বতস্ফূর্তভাবে উত্তর দেয়া
  • যদি ১৩ বছর বয়সেও মাসিক শুরু না হয় তবে মেয়েকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া
  • মাসিক সংক্রান্ত যেকোন জটিলতায় মেয়েকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যেতে সাহায্য করা ও উৎসাহ দেয়া
  • বাসায় ও স্কুলে মাসিকবান্ধব টয়লেট নিশ্চিত করা। স্কুলে শিক্ষকদের সাথে এ বিষয়ে কথা বলা

Leave a Reply

Your email address will not be published.